ভালবাসা

সকালের তাড়াহুড়োয় তোমার অম্লান হাসিটা ব্যাক প্যাকের ভেতরে পুরে কর্মস্থলে ছুটছি। সারাদিন সেই হাসিটাই আমার সম্বল। রোজকার খুনসুটিগুলো লাল গোলাপের মত করে ফুটে উঠে কফির টেবিলে। রাজনীতি, ইতিহাস, উত্তাল ব্লগের কানাগলি পেরিয়ে পেরিয়ে, যেইনা আমি আমার একটা কবিতা শুনাই তোমাকে, তুমি হয়ে উঠো কবিতার শত্রু! তোমার কাছে কবিতা দুর্বোধ্য। তবু আমি জানি তুমি ফিরবে ঐ কবিতার কাছেই শেষ অবধি।

বার বার ঘরে ফেরা, নিরেট আড্ডা, তাকবীর শেষে যুগল সিজদা, বেঁচে থাকার জন্য খানাদানার আয়োজন, উৎকন্ঠা, সিদ্ধান্তহীনতা, শুশ্রূষার অপেক্ষায় থাকা অসুস্থতার প্রহরগুলো, সালাম বিনিময়ে শেষে রাত্রি বিদায়, মিল অমিলের যোগফল, পছন্দ অপছন্দের সন্ধি, কৈশরের স্মৃতিচারণ, স্বপ্ন ভাগাভাগি, সবটা জুরে দুটো প্রানের এক অকৃত্রিম স্পন্দন। সেখানে আছে বন্ধুত্ব, আছে আস্থা, আছে বিশ্বাসের নকশা।

এই স্পন্দনকে কি নিছক একটা দিনে বেঁধে ফেলা সম্ভব? নিত্যকার এত খুঁটিনাটি মুহুর্তগুলোর যে অপূর্বতা, সেগুলোই তো জীবনের আসল নির্জাস।

Facebook Comments

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.